• মঙ্গলবার ২৮ মে ২০২৪ ||

  • জ্যৈষ্ঠ ১৪ ১৪৩১

  • || ১৯ জ্বিলকদ ১৪৪৫

আজকের টাঙ্গাইল

ফরজ গোসলের পর অপবিত্র কাপড় ধোয়া যাবে কি?

আজকের টাঙ্গাইল

প্রকাশিত: ১৩ সেপ্টেম্বর ২০২৩  

হজরত আয়েশা রাদিয়াল্লাহু তাআলা আনহা থেকে বর্ণিত, এক হাদিসে রাসূলুল্লাহ  সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেছেন, ‘যখন কোনো পুরুষ তার (স্ত্রীর) দুই পা ও দুই রানের মাঝে বসবে এবং একের লজ্জাস্থান অপরের লজ্জাস্থানের সঙ্গে লেগে যাবে তখন (দু’জনেরই) গোসল ফরজ হয়ে যাবে’। (মুসলিম, হাদিস, ৩৪৯)
কারো ওপর গোসল ফরজ হলে প্রথমে তাকে পরিচ্ছন্ন ও পবিত্র হওয়ার নিয়ত করতে হবে। মানে স্ত্রী-সঙ্গম, স্বপ্নদোষ, ঋতুগ্রাব ও প্রসব ইত্যাদির কারণে যে নাপাকি এসেছে, সেটা দূর করার নিয়ত করবেন। অর্থাৎ, মনে মনে এই চিন্তা করবেন যে- নাপাকি দূর করার জন্য গোসল করছি।

এরপর লজ্জাস্থানে লেগে থাকা নাপাকি প্রথমে ধুয়ে নিতে হবে। তারপর দুই হাত কব্জি পর্যন্ত ধুয়ে নেবেন। সাবান বা এজাতীয় কিছু দিয়ে ধুতে পারলে ভালো; না হলেও অসুবিধা নেই।

তারপর নামাজের ওজুর মতো করে পূর্ণাঙ্গ ওজু করবেন। এরপর পানি দিয়ে মাথা ভিজিয়ে নেবেন। তারপর প্রথমে শরীরের ডান অংশে এবং পরে বাম অংশে পানি ঢালবেন। তারপর সারা দেহে পানি ঢালবেন।

কেউ ফরজ গোসল শেষ করার পর অপবিত্র কাপড় ধুতে চাইলে ধুতে পারবে, এতে কোনো সমস্যা নেই। এবং এর কারণে আবার নতুন করে গোসলও করতে হবে না।

অপবিত্র কাপড় পবিত্র করার নিয়ম হলো- কাপড়ে লাগা অপবিত্র বস্তু  দূর করে কাপড়কে তিনবার ধুতে হবে, তিনবারই নিংড়াতে হবে। শেষবার একটু শক্তভাবে নিংড়াতে হবে, যাতে করে পরবর্তীতে আর কোনো পানি বের না হয়। (ফাতাওয়ায়ে হাক্কানিয়া, ২/৫৭৪; জামিউল ফাতাওয়া, ৫/১৬৭)

উল্লেখ্য, পবিত্র কোরআনুল কারিমে মহান রাব্বুল আরামিন আল্লাহ তাআলা বলেন, ‘যদি তোমরা অপবিত্র হও তাহলে গোসল করে সমস্ত শরীর পবিত্র করে নাও। কিন্তু যদি রোগগ্রস্ত হও কিংবা সফরে থাক অথবা তোমাদের কেউ পায়খানা থেকে ফিরে আস কিংবা তোমরা স্ত্রীদেরকে স্পর্শ কর (স্ত্রী-সহবাস কর), অতঃপর পানি না পাও তাহলে পবিত্র মাটি দিয়ে তায়াম্মুম করে নাও, তখন তোমরা তা দ্বারা তোমাদের মুখমন্ডল ও হাত মাসাহ কর, আল্লাহ তোমাদের উপর কোনো সংকীর্ণতা আনয়ন করতে চান না, বরং তিনি তোমাদেরকে পবিত্র করতে ও তোমাদের উপর স্বীয় নিআমাত পূর্ণ করতে চান, যেন তোমরা কৃতজ্ঞতা প্রকাশ কর’। (সূরা: মায়েদা, আয়াত: ৫)

আজকের টাঙ্গাইল
আজকের টাঙ্গাইল