• সোমবার ০৪ মার্চ ২০২৪ ||

  • ফাল্গুন ২০ ১৪৩০

  • || ২২ শা'বান ১৪৪৫

আজকের টাঙ্গাইল

নতুন সরকারের সঙ্গে কাজ করবে ইইউ ও যুক্তরাষ্ট্র

আজকের টাঙ্গাইল

প্রকাশিত: ১৮ জানুয়ারি ২০২৪  

বাংলাদেশের নবগঠিত সরকার ও জনগণের সঙ্গে ঘনিষ্ঠভাবে কাজ করার আগ্রহ প্রকাশ করেছে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ও ইউরোপীয় ইউনিয়ন (ইইউ)। বাংলাদেশের সঙ্গে শীঘ্রই নতুন পার্টনারশিপ কো-অপারেশন অ্যাগ্রিমেন্টে (পিসিএ) সই করতে যাচ্ছে ইইউ। এর মধ্যে দিয়ে দুই পক্ষের সম্পর্ক আরও বাড়বে। বুধবার মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ও ইউরোপীয় ইউনিয়নের রাষ্ট্রদূত নবনিযুক্ত পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদের সঙ্গে সাক্ষাৎ শেষে এসব কথা বলেন। দুই রাষ্ট্রদূত পররাষ্ট্রমন্ত্রীকে আওয়ামী লীগের প্রতীক নৌকা উপহার দেন। সাক্ষাৎ শেষে ঢাকায় নিযুক্ত মার্কিন রাষ্ট্রদূত পিটার হাস বলেন, আগামী দিনে বাংলাদেশ ও যুক্তরাষ্ট্র ঘনিষ্ঠভাবে কাজ করবে। পিটার হাস বলেন, নতুন পররাষ্ট্রমন্ত্রীর সঙ্গে দেখা করার সুযোগ হয়েছে। ভবিষ্যতে বাংলাদেশ-যুক্তরাষ্ট্রের সম্পর্ক ও পারস্পরিক বিষয় কীভাবে এগিয়ে নিতে পারি, তা নিয়ে আলোচনা হয়েছে। এর মধ্যে রয়েছে ব্যবসা বাণিজ্য, রোহিঙ্গা ও জলবায়ু পরিবর্তন ইত্যাদি। আগামী মাসগুলোতে আমরা ঘনিষ্ঠভাবে কাজ করে যাব। ঢাকায় নিযুক্ত ইউরোপীয় ইউনিয়নের (ইইউ) রাষ্ট্রদূত চার্লস হোয়াইটলি বলেন, বাংলাদেশের সঙ্গে শীঘ্রই নতুন পার্টনারশিপ কো-অপারেশন অ্যাগ্রিমেন্টে (পিসিএ) সই করতে যাচ্ছে ইইউ। এর মধ্যে দিয়ে দুপক্ষের সম্পর্ক আরও বাড়বে। চার্লস হোয়াইটলি বলেন, পররাষ্ট্রমন্ত্রী হাছান মাহমুদের সঙ্গে এটি আমার প্রথম বৈঠক। বেলজিয়ামের সঙ্গে তার ভালো সম্পর্ক রয়েছে। কারণ তিনি সেখানেই লেখাপড়া করেছেন। আর বেলজিয়াম হচ্ছে ইউরোপীয় ইউনিয়নের প্রধান কার্যালয়। বৈঠকে ইইউ-বাংলাদেশের সম্পর্ক নিয়ে আমাদের মধ্যে বিস্তৃত আলোচনা হয়েছে। আপনারা জানেন, আমাদের অনেক এজেন্ডা রয়েছে। শীঘ্রই নতুন পার্টনারশিপ কো-অপারেশন অ্যাগ্রিমেন্টে (পিসিএ) সই করতে যাচ্ছি আমরা। এটি অনেক ব্যাপক ও নতুন প্রজন্মের চুক্তি। এ সময়ে মধ্যপ্রাচ্য ও ইউক্রেন-রাশিয়ার সংঘাতসহ বৈশ্বিক পরিস্থিতি নিয়েও আমাদের কথা হয়েছে। যেটিকে আমরা অনেক বেশি গুরুত্ব দিচ্ছি। আলোচনায় রোহিঙ্গা সংকটও উঠে এসেছে। এসব ক্ষেত্রে বাংলাদেশের সাথে আমাদের দীর্ঘদিনের সহযোগিতার সম্পর্ক রয়েছে। আগামীতেও বহু বছর ধরে এ সহযোগিতা অব্যাহত থাকবে বলে আশা করছি। আমাদের বৈঠক ছিল খুবই ফলপ্রসূ। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে ইইউ-বাংলাদেশ সম্পর্ক আরও এগিয়ে যাবে বলে আমি প্রত্যাশা করছি।

আজকের টাঙ্গাইল
আজকের টাঙ্গাইল