• মঙ্গলবার ২৮ মে ২০২৪ ||

  • জ্যৈষ্ঠ ১৪ ১৪৩১

  • || ১৯ জ্বিলকদ ১৪৪৫

আজকের টাঙ্গাইল

দুর্যোগ ঝুঁঁকি নিরসনে কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তার ব্যবহার

আজকের টাঙ্গাইল

প্রকাশিত: ২৬ মে ২০২৩  

দুর্যোগ ব্যবস্থাপনায় বাংলাদেশ অনেক পিছিয়ে রয়েছে। তাই ঝুঁঁকি নিরসনে সম্মন্বিতভাবে কাজ করতে হবে। অনেক টেকনি ব্যবহার করতে হবে। দুর্যোগ ঝুঁঁকি নিরসনে কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা ব্যবহার করতে হবে বলে জানান দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা অধিদপ্তরের মহাপরিচালক মো. মিজানুর রহমান। 

বৃহস্পতিবার রাজধানীর বনানী হোটেল সারিনায় ‘স্ট্রেংদেনিং আরবান পাবলিক-প্রাইভেট প্রোগ্রামিং ফর আর্থকোয়েক রেজিলিয়েন্স’ (সুপার) কনসোর্টিয়াম প্রকল্প আয়োজিত দুর্যোগ ঝুঁঁকি নিরসনে কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তার ব্যবহার বিষয়ক এক কর্মশালায় তিনি এসব কথা বলেন। ইউরোপিয়ান ইউনিয়ন সিভিল প্রটেকশন এন্ড হিউমেনিটেরিয়ান এইড (একো) এর অর্থায়নে আয়োজিত এ কর্মশালায় দুর্যোগ ঝুঁঁকি নিরসনে কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তার ব্যবহার বিষয়ে সচিত্রে উপস্থাপনা করা হয়। কর্মশালায় আগত অতিথিরা দুর্যোগ ঝুঁঁকি নিরসনে তাদের গুরুত্বপূর্ণ মতামত প্রদান করেন।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে মিজানুর রহমান বলেন, ঢাকায় জ্বলাশয় ভরাট করে বিল্ডিং তৈরি করা হচ্ছে। প্রতি বছর ১ লক্ষ ভবন তৈরি হচ্ছে। কোন নিয়মনীতি মানা হচ্ছে না। এতে এই শহর বিপদের মুখে পরছে। তাই আমাদের আধুনিক প্রযুক্তি নিয়ে ভাবতে হবে। এই কর্মশালায় সুপার প্রকল্প দুর্যোগ ঝুঁঁকি নিরসনে কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা ব্যবহারে কাজ করেছে। এই প্রযুক্তির মাধ্যমে আমরা আগুনের খবর খুব দ্রুত পেয়ে যাবো।  


কর্মশালায় অন্যান্য বক্তারা বলেন, সামাজিক ও অর্থনৈতিক উন্নয়নের জন্য দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা অপরিহার্য। একই সঙ্গে জরুরি কার্যক্রম এবং দুর্যোগ ব্যবস্থাপনায় আধুনিক প্রযুক্তি ব্যবহার করে প্রাথমিক সনাক্তকরণের মাধ্যমে দুর্যোগের ঝুঁঁকি নিরসন করতে হবে।  
কর্মশালায় আরো উপস্থিত ছিলেন ডিজি একো বাংলাদেশের হেড অব অফিসের আন্না অরলান্ডি, ফায়ার সার্ভিসের সাবেক মহাপরিচালক বিগ্রেডিয়ার জেনারেল আলী আহমদ খান, ঢাকা ইউনাইটেড পারপাস বাংলাদেশের কান্ট্রি ডিরেক্টর শ্রীরামাপ্পা গঞ্চিকারা, ইউনাইটেড পারপাস বাংলাদেশের দুর্যোগ ঝুঁকি ব্যবস্থাপনা ও জরুরি সাড়াদান ইউনিটের প্রধান মাসুদ রানা, সুপার কনসোর্টিয়াম প্রকল্পের ব্যবস্থাপক আ ম নাসির উদ্দিন ও ব্রাক বিশ্ববিদ্যালয়ের কম্পিউটার সায়েন্স ও প্রকৌশল বিভাগের প্রফেসর মোহাম্মদ কায়কোবাদ।


কর্মশালা শেষে সাংবাদিকদের সঙ্গে এক মতবিনিময়ে সুপার কনসোর্টিয়াম প্রকল্পের ব্যবস্থাপক আ ম নাসির উদ্দিন বলেন, স্ট্রেংদেনিং আরবান পাবলিক-প্রাইভেট প্রোগ্রামিং ফর আর্থকোয়েক রেজিলিয়েন্স’ সুপার কনসোর্টিয়াম প্রকল্প, ব্র্যাক বিশ্ববিদ্যালয়ের সঙ্গে একটি কৃত্রিক বুদ্ধিমত্তা ভিত্তিক সমাধান কল্ল্যাণপুর বস্তিতে পরীক্ষামূলকভাবে স্থাপন করেছে। যা আগুন এবং জলাবদ্ধতা সংক্রান্ত দুর্যোগ ঝুঁঁকির আগাম পূর্বাভাস দিতে সক্ষম। ফলে দুর্যোগে ক্ষয়ক্ষতি রোধ অনেকাংশে সম্ভব হবে। নাসির উদ্দিন বলেন, আগ্নিকান্ডের ঘটনা ঘটলে ফায়ার সার্ভিসকে জানাতে সময় লাগে। এতে ফায়ার স্টেশন থেকে গাড়ি আসতে আসতে ১৫-২০ মিনিট লেগে যাচ্ছে। আমাদের এই প্রযুক্তির মাধ্যমে দুর্যোগের ১০ সেকেন্ডের মধ্যে খবর পেয়ে যাবো। এতে দুর্যোগ ঝুঁঁকির প্রথমেই যেনে গেলে খুব সহজেই আমরা মোকাবেলা করতে পারবো।   

ইউরোপিয়ান ইউনিয়ন সিভিল প্রটেকশন এন্ড হিউমেনিটেরিয়ান এইড (একো) এর অর্থায়নে জনসাধারণ এবং ব্যবসায়ী সম্প্রদায়ের মাঝে দুর্যোগে সহনশীলতা গড়ে তোলার জন্য ‘সুপার কনসোর্টিয়াম প্রকল্পটি যৌথভাবে বাস্তবায়ন করছে অ্যাকশনএইড, ঢাকা চেম্বার অফ কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রি (ডিসিসিআই), ইউনাইটেড পারপাস এবং ওয়ার্ল্ড ভিশন। এই প্রকল্পে কৌশলগত সহায়তাকারী সংস্থা হিসেবে কাজ করছে জাতিসংঘের আবাসিক সমন্বয়কারীর দফতর (ইউএনআরসিও)। 

আজকের টাঙ্গাইল
আজকের টাঙ্গাইল