• বুধবার   ১৯ জানুয়ারি ২০২২ ||

  • মাঘ ৬ ১৪২৮

  • || ১৫ জমাদিউস সানি ১৪৪৩

আজকের টাঙ্গাইল

আম রপ্তানির দুয়ার খুলছে

আজকের টাঙ্গাইল

প্রকাশিত: ২৭ নভেম্বর ২০২১  

আম উৎপাদনকারী দেশগুলোর মধ্যে বাংলাদেশ এখন বিশ্বে সপ্তম। এবার দেশে প্রায় ১৫ লাখ টন আম উৎপাদিত হয়েছে। অথচ আম রপ্তানিতে অনেক পিছিয়ে আছে দেশ।

দীর্ঘদিন ধরে আম রপ্তানির কথা বলা হলেও কার্যকর কোনো ফল আসেনি। নামমাত্র কিছু আম রপ্তানি হয়ে আসছিল। সেগুলোও প্রবাসী বাংলাদেশি ক্রেতাদের জন্য রপ্তানি করছিলেন হাতে গোনা কয়েকজন রপ্তানিকারক।

কিন্তু সেই চিত্র এবার বদলে যেতে শুরু করেছে। বাংলাদেশের রপ্তানি বাণিজ্যে নতুন আশা জাগাচ্ছে আম। ইতোমধ্যে রপ্তানিতে চমক দেখাতে শুরু করেছে বাংলাদেশ। ২০১৯ মৌসুমে মাত্র ১০০ টন আম রপ্তানি করেছিল বাংলাদেশ। প্রতি টন ৪ হাজার ৮০০ ডলার হিসাবে টাকার অঙ্কে যার পরিমাণ ছিল সাড়ে ৪ কোটি ১১ লাখ ৮৪ হাজার টাকা। পরের বছর ২০২০ মৌসুমে সেই রপ্তানি এক লাফে বেড়ে দাঁড়িয়েছে ১ হাজার ৭০০ হাজার টন। দেশে আসে ৭০ কোটি ১ লাখ ২৮ হাজার টাকা।


চলতি ২০২১ মৌসুমে ৫ হাজার টন আম রপ্তানির লক্ষ্য ধরেছে রপ্তানি উন্নয়ন ব্যুরো (ইপিবি)। এর মধ্যে সেপ্টেম্বর পর্যন্ত ১ হাজার ২০০ টন ইতোমধ্যে রপ্তানি করেছেন ব্যবসায়ীরা। দেশে এনেছেন ৫০ কোটি টাকার বিদেশি মুদ্রা।

দেশে প্রতিবছর মে থেকে শুরু হয় আমের মৌসুম। অক্টোবর পর্যন্ত ভরা মৌসুম থাকে। এর পরেও প্রক্রিয়াজাতকৃত আম রপ্তানি করে থাকেন রপ্তানিকারকরা। এই মৌসুমের পুরো হিসাব পাওয়া গেলে আম রপ্তানি থেকে এবার ২০০ কোটি টাকার বেশি বিদেশি মুদ্রা দেশে আসবে বলে আশা করছেন রপ্তানিকারকরা।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ‘আম কূটনীতির’ সুফল পেতে শুরু করেছে বাংলাদেশ। রপ্তানিতে উল্লম্ফন ঘটছে। আগামী দিনগুলোতে এই বৃদ্ধির ধারা অব্যাহত থাকবে বলে আশার কথা শুনিয়েছেন কৃষিমন্ত্রী, কৃষি অর্থনীতিবিদ ও রপ্তানিকারকরা।

রপ্তানি উন্নয়ন ব্যুরোর তথ্য ঘেঁটে দেখা যায়, গত অর্থবছরের জুলাই-সেপ্টেম্বর সময়ে সিঙ্গাপুরে ১০ হাজার ডলারের আম রপ্তানি করেছিল বাংলাদেশ। চলতি অর্থবছরে একই সময়ে সিঙ্গাপুর ছাড়াও এশিয়া এবং ইউরোপের আরও ১৪টির বেশি দেশে আম রপ্তানি হয়েছে।

বাংলাদেশ আম উৎপাদনে বিশ্বে সপ্তম হলেও পণ্যটি রপ্তানি আয়ের দিক থেকে একদমই তলানিতে ছিল। বাংলাদেশের চেয়েও কম পরিমাণ আম উৎপাদন করে অনেক দেশ এ ফল রপ্তানি করে বিপুল পরিমাণ বিদেশি মুদ্রা আয় করছে।

ফলের মধ্যে দেশে সবচেয়ে বেশি উৎপাদন হয় আম। বছর বছর এই উৎপাদন বাড়ছে। তাই দেশের মানুষের পুষ্টির অন্যতম উৎস হয়ে দাঁড়িয়েছে আম।

দেশে আমের উৎপাদন
শুধু পরিমাণের দিক থেকে আম বাংলাদেশের প্রধান ফল হয়েছে, তা নয়। দেশের অন্তত ছয়টি জেলার অন্যতম প্রধান বাণিজ্যিক কৃষিপণ্য হয়ে উঠেছে আম। বছর বছর নতুন নতুন আমবাগান হচ্ছে।

বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরোর (বিবিএস) হিসাবে, ২০১৯-২০ অর্থবছরে দেশে আম উৎপাদিত হয়েছে ১২ লাখ ২২ হাজার টন। দেশে ২ লাখ ৩৫ হাজার একর জমিতে আমবাগান রয়েছে। প্রতিটি গাছে গড়ে ৭৭ কেজি করে আম উৎপাদিত হয়।

কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের হিসাবে, দেশে আমের উৎপাদন ২৪ লাখ টনের মতো। প্রতিবছর প্রায় ১৪ হাজার কোটি টাকার আমের বাণিজ্য হয়। আম উৎপাদন থেকে শুরু করে বিপণন, মোড়কীকরণ ও পরিবহন মিলিয়ে এক বিশাল বাজার গড়ে উঠেছে। প্রতিবছর এপ্রিলে কাঁচা আম বাজারে আসা থেকে শুরু হয়। চলে সেপ্টেম্বরে আশ্বিনা আম বিপণন শেষ হওয়া পর্যন্ত।

অধিদপ্তরের কর্মকর্তারা বলছেন, কৃষিপণ্যের মধ্যে দেশে প্রতিবছর সবচেয়ে বেশি হারে বাড়ছে আমের উৎপাদন। ফলে দেশের চাহিদা মিটিয়ে আম রপ্তানির সুযোগও তৈরি হয়েছে।

বিশ্বে সপ্তম বাংলাদেশ
বিশ্বে সবচেয়ে বেশি আম উৎপাদিত হয় ভারতে। বাংলাদেশের অবস্থান সপ্তম। বিশ্ব খাদ্য ও কৃষি সংস্থার (এফএও) ওয়েবসাইটে বিভিন্ন ফল উৎপাদনের একটি হিসাব দেয়া আছে। ২০১৯ সালের এই হিসাবে আম ও পেয়ারার উৎপাদন একসঙ্গে দেখানো হয়েছে। সে হিসাব অনুযায়ী, ভারতে ওই বছর উৎপাদন ছিল প্রায় ২৬ কোটি টন।

আম-পেয়ারা উৎপাদনে শীর্ষ ১০টি দেশের তালিকায় ভারত ও বাংলাদেশ ছাড়াও রয়েছে ইন্দোনেশিয়া, চীন, মেক্সিকো, পাকিস্তান, মালাবি, ব্রাজিল, থাইল্যান্ড ও মিসর। ওই তালিকা অনুযায়ী বাংলাদেশে আম-পেয়ারার উৎপাদন প্রায় সাড়ে ১৪ লাখ টন।

কেন ফলের ‘রাজা’ আম
দেশে সবচেয়ে বেশি উৎপাদিত হওয়া ফল আম। বিবিএসের হিসাবে, ২০১৯-২০ অর্থবছরে সবচেয়ে বেশি উৎপাদিত হওয়া ১০টি ফল হলো আম, কলা, কাঁঠাল, তরমুজ, পেয়ারা, আনারস, বরই, জাম্বুরা, লিচু ও আমড়া।

উৎপাদনে আম শুধু এগিয়ে নয়, ব্যবধানও অনেক বেশি। আমের উৎপাদন ১২ লাখ টন, পেছনে থাকা কাঁঠালের উৎপাদন ১০ লাখ টনের মতো। এ ছাড়া কলা ৮ লাখ টন, তরমুজ আড়াই লাখ টন, পেয়ারা সোয়া ২ লাখ টন ও আনারস ২ লাখ টনের কিছু বেশি উৎপাদিত হয়।

আম কূটনীতির সুফল
আম রপ্তানির ক্ষেত্রে অন্যতম সমস্যা হচ্ছে রপ্তানিযোগ্য উন্নত জাতের আমের অভাব। স্থানীয় আমের জাতগুলোর ‘শেলফ লাইফ’ কম, অর্থাৎ তা দ্রুত নষ্ট হয়ে যায়। এ ছাড়া মানসম্মত কৃষি পদ্ধতির চর্চা, আন্তর্জাতিক মানের প্যাকেজিংয়ের অভাব এবং আন্তর্জাতিক বাজারে বাংলাদেশি আমের ব্র্যান্ডিং-সংকটের কারণে এতদিন আম রপ্তানিতে সুফল আসেনি।

রপ্তানিকারকরা বলছেন, গত মৌসুমে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি ও পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানকে উপহার হিসেবে আম পাঠানোর খবর বিশ্বজুড়ে বাংলাদেশের আমের ব্র্যান্ডিং সৃষ্টিতে বড় ধরনের ভূমিকা রেখেছে। তারপর থেকেই বিভিন্ন দেশ থেকে বাংলাদেশি আমের রপ্তানি অর্ডার বাড়তে থাকে। এতেই রপ্তানির তলানি থেকে গা ঝাড়া দিয়ে ওঠার ইঙ্গিত মিলছে।

বাংলাদেশ ফ্রুটস অ্যান্ড ভেজিটেবল এক্সপোর্টার্স অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি এস এম জাহঙ্গীর হোসেন বলেন, ‘সত্যিই বিশ্ববাজারে আমের চাহিদা বেড়েছে। দামও ভালো পাওয়া যাচ্ছে। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী খুবই আন্তরিক। তার বিচক্ষণতার কারণেই আম রপ্তানির একটি ভালো সুযোগ সৃষ্টি হয়েছে। আশা করছি, এই সুযোগ আমরা কাজে লাগাতে পারব।

‘তবে আম রপ্তানির ক্ষেত্রে কয়েকটি প্রতিবন্ধকতা আছে। সমুদ্রপথে জাহাজে আম রপ্তানি করা যায় না। সব আমই আকাশপথে (বিমান) পাঠাতে হয়। কিন্তু বিমান ভাড়া অনেক বেশি। পাশের দেশ ভারত ও থাইল্যান্ডের চেয়ে দ্বিগুণের মতো। এত বেশি বিমান ভাড়া দিয়ে আম রপ্তানি করে প্রতিযোগিতায় টিকে থাকা যায় না।

‘এ ছাড়া বিমানবন্দরে স্ক্যানিং মেশিন প্রায় নষ্ট থাকে। তাতে রপ্তানিও বন্ধ থাকে। এর আগে টানা কয়েক মাস স্ক্যানিং মেশিন নষ্ট ছিল। মাঝে চালু হলেও গত তিন দিন ধরে আবার নষ্ট। বন্ধ আছে শাকসবজি, ফলমূলসহ সব ধরনের রপ্তানি।’

সত্যিকার অর্থে আম রপ্তানি বাড়াতে হলে সরকারের শীর্ষ মহলকে এসব বিষয়ে নজর দেয়ার পরামর্শ দেন জাহঙ্গীর হোসেন।

এই অ্যাসোসিয়েশনের উপদেষ্টা কৃষিবিদ মনজুরুল ইসলাম বলেন, ‘আম রপ্তানিতে যে সম্ভাবনা দেখা দিয়েছে, তা মূলত প্রধানমন্ত্রীর আম কূটনীতির কারণেই হয়েছে।’

তিনি বলেন, 'বাংলাদেশের আম অত্যন্ত সুস্বাদু হলেও আন্তর্জাতিক বাজারে এর কোনো পরিচিতি ছিল না। ফলে রপ্তানি অর্ডারও আগে মিলত না। এবার প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ভারত ও পাকিস্তানের সরকারপ্রধানকে আম উপহার দেয়ার খবর আন্তর্জাতিক গণমাধ্যমেও প্রচার পেয়েছে। এতে বাংলাদেশের আমের ব্র্যান্ডিং হওয়ায় এ বছর রপ্তানি অনেক বেড়েছে।’

আগামী তিন বছরে সরকার ১ লাখ টন আম রপ্তানির লক্ষমাত্রা ঠিক করেছে জানিয়ে মনজুরুল ইসলাম বলেন, ‘আমের দিকে সুনজর দিলে ভবিষ্যতে এ খাত থেকে বিপুল পরিমাণ বিদেশি মুদ্রা অর্জন সম্ভব।’

মনজুরুল ইসলাম বলেন, ‘আগামী মৌসুম সামনে রেখে অ্যাসোসিয়েশনের উদ্যোগে সাতক্ষীরা, রাজশাহী, চাঁপাইনবাবগঞ্জ, নওগাঁ ও দিনাজপুরের প্রায় ১০০ বাগানকে ক্লাস্টার করে গ্রুপ গ্রুপ করে আলাদা করে গিয়ে আম চাষের উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। কৃষকদের প্রশিক্ষণ দেয়া হচ্ছে। এসব বাগানে যে আম উৎপাদিত হবে, তা শুধু রপ্তানি করা হবে।’

এ ব্যবস্থা বাংলাদেশের রপ্তানি বাড়াতে সহায়তা করবে বলে জানান তিনি।

আম রপ্তানিকারক লি এন্টারপ্রাইজের কর্ণধার আবুল হোসেন বলেন, ‘গত মৌসুমে বাংলাদেশের আমের ব্যাপক চাহিদা ছিল ইউরোপের দেশগুলোতে। কিন্তু আমাদের রপ্তানি সক্ষমতা থাকলেও এয়ারলাইনসের সমস্যার কারণে আমরা খুব বেশি রপ্তানি করতে পারিনি। পাকিস্তান প্রতিবছর ১ লাখ টনের বেশি আম রপ্তানি করে। এয়ারলাইনসের সমস্যা দূর হলে আমরাও ১ লাখ টন আম রপ্তানি করতে পারব।'

২০২০ মৌসুমে সবচেয়ে বেশি আম রপ্তানি হয়েছে ইতালি ও যুক্তরাজ্যে। ইতালিতে রপ্তানির পরিমাণ ছিল ১৬ হাজার ৮৯২ ডলার এবং যুক্তরাজ্যে ১২ হাজার ১০৫ ডলার। এ ছাড়া নেদারল্যান্ডসে ৫ হাজার ৬১৫ ডলার, অস্ট্রিয়ায় ৫ হাজার ৩৯৮ ডলারের আম রপ্তানি করে বাংলাদেশ।

চলতি ২০২১ মৌসুমের জুলাই-সেপ্টেম্বর সময়ে সবচেয়ে বেশি আম রপ্তানি হয়েছে যুক্তরাজ্যে, ৫ লাখ ৬ হাজার ৪৮৭ ডলার। দ্বিতীয় সর্বোচ্চ ৭১ হাজার ৮৭৪ ডলারের আম রপ্তানি হয়েছে কুয়েতে।

এ ছাড়া সংযুক্ত আরব আমিরাত, কানাডা, জার্মানি, ইতালি, সৌদি আরব, সুইডেন, ভারত, সোয়াজিল্যান্ড, সুইজারল্যান্ড, নেদারল্যান্ডস, নেপাল, সুইডেন ও সিঙ্গাপুরেও রপ্তানি হয়েছে বাংলাদেশের আম।

গত জুলাই মাসে কৃষি মন্ত্রণালয়ে ‘আম রপ্তানি বৃদ্ধিতে করণীয়’ বিষয়ে এক মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত হয়। সভায় আমচাষিসহ সংশ্লিষ্ট সরকারি কর্মকর্তারা অংশ নেন। সভায় দেশে নিরাপদ ও বিষমুক্ত আম চাষ এবং আমের আন্তর্জাতিক বাজার অনুসন্ধানের ওপর জোর দেয়া হয়।

ওই সভায় জানানো হয়, ২০২০ সালে থাইল্যান্ড বিশ্বের সর্বোচ্চ ৭৩ কোটি ৪০ লাখ ডলারের আম রপ্তানি করেছে। বাংলাদেশের প্রতিবেশী ভারত ১৩ কোটি ৭০ লাখ ডলার ও পাকিস্তান ১০ কোটি ১০ লাখ ডলারের আম রপ্তানি করেছে। সেখানে বাংলাদেশ মাত্র ৫০ হাজার ডলারের (৪২ লাখ টাকা) আম রপ্তানি করেছে, যার বড় অংশ মূলত প্রবাসী বাংলাদেশি ক্রেতাদের জন্য রপ্তানি করা।

আম রপ্তানি বাড়াতে সর্বাত্মক উদ্যোগ নেয়া হচ্ছে বলে জানিয়েছেন কৃষিমন্ত্রী আব্দুর রাজ্জাক। তিনি বলেন, ‘দেশের আমকে আমরা ব্যাপকভাবে বিশ্ববাজারে নিয়ে যেতে চাই। সে জন্য রপ্তানি বাধাগুলো চিহ্নিত করে তা নিরসনে কাজ চলছে। ইতিমধ্যে নিরাপদ আমের নিশ্চয়তা দিতে তিনটি ভ্যাকুয়াম হিট ট্রিটমেন্ট প্ল্যান্ট স্থাপনের কাজ চলছে। উৎপাদন থেকে শিপমেন্ট পর্যন্ত আম নিরাপদ রাখতে উত্তম কৃষিচর্চা বাস্তবায়ন শুরু হয়েছে। ফাইটোস্যানিটারি সার্টিফিকেট দেয়ার কাজ চলছে।’

ফলে আগামী দিনগুলোতে আম রপ্তানির পরিমাণ অনেক বাড়বে বলে আশার কথা শোনান মন্ত্রী।

কূটনৈতিক সম্পর্ক উন্নয়নে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সুস্বাদু আম উপহারের বিষয়টি এবার বেশ আলোড়ন তুলেছিল। শুধু প্রতিবেশী রাষ্ট্র ভারত নয়, বিভিন্ন দেশের রাজা-বাদশাহ, রাষ্ট্রপতি, প্রধানমন্ত্রীর জন্য উপহার হিসেবে পাঠানো হয়েছে ফলের রাজা আম।

এই আম উপহারের ফলে বাংলাদেশের সুস্বাদু আম নিয়ে বেশ আলোচনা হয়েছে। আন্তর্জাতিক মিডিয়াতেও এসেছে বিষয়টি।

আজকের টাঙ্গাইল
আজকের টাঙ্গাইল