• শনিবার   ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২১ ||

  • আশ্বিন ১০ ১৪২৮

  • || ১৮ সফর ১৪৪৩

আজকের টাঙ্গাইল
সর্বশেষ:
উল্লাপাড়ায় প্রবাসীর স্ত্রী ধর্ষণের অভিযোগে গৃহশিক্ষক গ্রেফতার কাজিপুরে মাইক্রোবাস মালিক সমিতির নির্বাচন অনুষ্ঠিত নাটোরের সিংড়ায় বন্যার্তদের মাঝে হুয়াওয়ের ত্রাণসামগ্রী বিতরণ বকশীগঞ্জে বাল্য বিয়ে থেকে রক্ষা পেলো ৮ম শ্রেণীর শিক্ষার্থী জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদের অধিবেশনে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ভাষণ বিজ্ঞান অলিম্পিয়াডে অনন্য শিমুলদাইড় উচ্চ বিদ্যালয় সখীপুরে বিআরডিবি নির্বাচন- চেয়ারম্যান রুহুল ভাইস চেয়ারম্যান শাফলু আজ ইসলামপুর আওয়ামী লীগের ত্রি-বার্ষিক সম্মেলন ভূঞাপুরে যমুনা নদীতে শুরু হয়েছে দুই দিনব্যাপী নৌকা বাইচ প্রতিযোগি জিয়াউর রহমান ছিলেন পাকিস্তানের এজেন্ট : মির্জা আজম

খালেদা জনগণের পার্লামেন্টে খুনিদের বসায়: প্রধানমন্ত্রী

আজকের টাঙ্গাইল

প্রকাশিত: ২ সেপ্টেম্বর ২০২১  

খালেদা জিয়া জনগণের পার্লামেন্টে খুনিদের বসায় বলে সংসদে মন্তব্য করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তিনি বলেন, ১৫ আগস্টের খুনিদেরকে জিয়াউর রহমান ইনডেমনিটি দিয়ে, বিভিন্ন দূতাবাসে চাকরি দিয়ে পুরস্কৃত করেছিল। খালেদা জিয়া তার থেকে আরও একধাপ উপরে যেয়ে জনগণের পার্লামেন্টে একজন খুনিকে এনে বসায়। বুধবার (১ সেপ্টম্বর) বিকেলে একাদশ জাতীয় সংসদের ১৪তম অধিবেশনে অধ্যাপক আলী আশরাফের মৃত্যুতে আনিত শোক প্রস্তাবের ওপর আলোচনায় অংশ নিয়ে প্রধানমন্ত্রী একথা বলেন।

পরে অধ্যাপক আলী আশরাফের মৃত্যুতে আনিত শোক প্রস্তাব গৃহীত হয়েছে বলে জানান স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী।

সংসদে প্রধানমন্ত্রী আরও বলেন, সংসদ সদস্য অধ্যাপক আলী আশরাফকে হারিয়ে দেশ একজন অভিজ্ঞ রাজনীতিবিদকে হারিয়েছে। কিস্তু দুভার্গ্যের বিষয় হলো তিনি যে এলাকা থেকে নির্বাচন করতেন সেই চান্দিনা এলাকায় জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের খুনি কর্ণেল রশীদের বাড়ি। প্রধানমন্ত্রী বলেন, ১৯৯৬ সালের ১৫ ফেব্রুয়ারি বাংলাদেশে একটা নির্বাচন হয়, খালেদা জিয়া ক্ষমতায় থেকে যে নির্বাচন করেছিল। যে নির্বাচনে দেশের সকল রাজনৈতিক দল বয়কট করেছিল। একটা ভোটারবিহীন নির্বাচন। সারা বাংলাদেশে সেনাবাহিনী নামিয়ে দিয়ে প্রশাসন ও গোয়েন্দা সংস্থাকে ব্যবহার করে সেই নির্বাচনটা করা হয়। সেই নির্বাচনে ওই চান্দিনা থেকে কর্ণেল রশীদকে সংসদ সদস্য করে সংসদে নিয়ে আসে এবং বিরোধী দলের নেতার আসনে বসান খালেদা জিয়া। দুইজনকে সংসদে এনেছিলেন। একজন হচ্ছে মেজর হুদা, তাকে চুয়াডাঙ্গা থেকে, আর চান্দিনা থেকে কর্ণেল রশীদকে।

সংসদ নেতা আরও অধ্যাপক আলী আশরাফ সম্পর্কে বলেন, ৭ম সংসদে তিনি (আলী আশরাফ) ডেপুটি স্পিকারের দায়িত্ব পালন করেছেন। এছাড়া বিভিন্ন কমিটিতে কখনো সভাপতি কখনো সদস্য হিসেবে অত্যান্ত দক্ষতার সাথে দায়িত্ব পালন করেছেন। উনার সাথে আমার দেখা হয়েছিল ‘৭৫ এর পর, যখন আমি ১৯৮০ সালে লন্ডনে। তিনি সব সময় ‘১৫ আগস্টের হত্যাকাণ্ডের যেমন প্রতিবাদও করেছেন আবার ৩ নভেম্বর যে হত্যাকাণ্ড তার বিরোধীতা করেছে আর সেখানে তিনি সাক্ষীও দিয়েছেন খুনিদের বিরুদ্ধে।

প্রয়াত আলী আশরাফের ওপর আনীত শোক প্রস্তাবের ওপর আরো বক্তব্য রাখেন, আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য শেখ ফজলুল করীম সেলিম, বেগম মতিয়া চৌধুরী, আইনমন্ত্রী আনিসুল হক, স্থানীয় সরকার মন্ত্রী তাজুল ইসলাম, কৃষিমন্ত্রী আব্দুর রাজ্জাক, বিরোধী দলীয় উপনেতা জি এম কাদের, মশিউর রহমান রাঙা, কাজী ফিরোজ রশীদ প্রমুখ। তারা অধ্যাপক আলী আশরাফের জীবন ও কর্মের ওপর স্মৃতিচারণ করেন। এর ফরে শোক প্রস্তাবটি সর্বসম্মতিক্রমে সংসদে গৃহিত হয়।

আজকের টাঙ্গাইল
আজকের টাঙ্গাইল