• শনিবার   ৩১ জুলাই ২০২১ ||

  • শ্রাবণ ১৬ ১৪২৮

  • || ২১ জ্বিলহজ্জ ১৪৪২

আজকের টাঙ্গাইল

এন্ড্রু কিশোর হতে চান ভূঞাপুরের রবি কিশোর

আজকের টাঙ্গাইল

প্রকাশিত: ৬ জুলাই ২০২১  

জনপ্রিয় সংগীতশিল্পী এন্ড্রু কিশোরের মৃত্যুর এক বছর হয়ে গেলেও শ্রোতার হৃদয়ে তার জায়গার এতটুকু নড়চড় হয়নি। তার ভক্ত রবি কিশোরেরও স্বপ্ন গানের মাধ্যমে শ্রোতার মনে নিজের জায়গা করা। এন্ড্রু কিশোর নিজেই রবি কিশোরের এই নাম দিয়েছিলেন। চেহারা ও কণ্ঠেও রয়েছে দুজনের বেশ মিল।

রবি জানান, টাঙ্গাইলের গোপালপুর উপজেলার মাইন্দা গ্রামে স্ত্রী-সন্তান, মা-বাবা নিয়ে তার সংসার। ২০০৮ সালে এসএসসি পাস করেন। আর্থিক অনটনের কারণে এরপর আর পড়ালেখা করা হয়নি। তবে সংগীতচর্চার শুরু ২০০১ সালে, ভূঞাপুরের শিল্পকলা একাডেমিতে। প্রথম থেকেই তিনি এন্ড্রু কিশোরের ভক্ত।

২০০৪ সালে প্রথমবার দেখা পান মনে মনে গুরু ভাবা এন্ড্রু কিশোরের। এরপর থেকে নিয়মিত যোগাযোগ হয়েছে। পেয়েছেন গান চালিয়ে যাওয়ার জন্য উৎসাহ, অনুপ্রেরণা। একটি রিয়েলিটি শোতে তার গান শুনে খুশি হয়ে এন্ড্রু কিশোর তার অটোগ্রাফসহ মগ উপহার দিয়েছিলেন।

এন্ড্রু কিশোরের জীবনের শেষ স্টেজ শো ছিল ভূঞাপুরের ইব্রাহীম খাঁ কলেজ মাঠে। এখানে রবি কিশোরকে তিনি পরিচয় করিয়ে দিয়েছিলেন নিজের উত্তরসূরি হিসেবে। দুজনে একসঙ্গে গানও গিয়েছিলেন সেদিন। এন্ড্রু কিশোরের মৃত্যুর খবর পেয়ে ছুটে গিয়েছিলেন রবি। নিজ কাঁধে বহন করেছেন তার কফিন। তবে সংসারের ঘানি বারবার বাধা হয়ে দাঁড়ায় সংগীত সাধনার পথে।

রবি বলেন, ‘আমি আমার জীবনের শেষ সময় পর্যন্ত দাদার অন্ধভক্ত হয়ে থাকতে চাই। আপনারা যদি একটু সহযোগিতা করেন তাহলেই হয়তো আমার স্বপ্নটা বাস্তব হতে পারে।’ সংগীতচর্চায় বন্ধুবান্ধবদের উৎসাহ পেলেও পরিবারের লোকদের চিন্তা কীভাবে চলবে সংসার।

তার স্ত্রী রাবেয়া জানান, রবি অনেকটাই এন্ড্রু কিশোরের মতো গান গায়। কিন্তু শুধু গান গেয়ে তো সংসার চলবে না। গানের পেছনে ঘুরে রবি অনেক টাকা খরচ করেছে। এখন তাদের না খেয়ে থাকার মতো অবস্থা।

‘যদি এভাবে চলতে থাকে তাহলে আস্তে আস্তে আমাদের সব শেষ হয়ে যাবে। আমাদের একটামাত্র মেয়ে। শেষে দেখা যাবে এই মেয়েটাকেই মানুষ করতে পারছি না।’

বাবা শরবেশ আলী জানান, গানের জন্য আগে কতবার রবিকে বাড়ি থেকে বের করে দিয়েছেন। কিন্তু ছেলের গানের প্রতি টান কমাতে পারেননি।

আক্ষেপ করে শরবেশ আলী বলেন, ‘রবি সংসারের কোনো কাজকাম করে না। গান ছাড়া অন্য কিছুর প্রতি মনোযোগই নাই। এখন আমি ওরে এন্ড্রু কিশোরের জন্যই সঁপে দিছি। ছেলেটা বড় শিল্পী হোক।’

রবি কিশোরের বন্ধু সানোয়ার বলেন, ‘রবির গান চোখ বন্ধ করে শুনলে মনে হয় এন্ড্রু কিশোরই গাইছে। এত ভালো গান গাওয়ার পরও ছেলেটা আগাতে পারল না। মিডিয়া যদি তাকে একটু তুলে ধরত তাহলে খুব ভালো হতো।’

আজকের টাঙ্গাইল
আজকের টাঙ্গাইল