• বুধবার   ১৮ মে ২০২২ ||

  • জ্যৈষ্ঠ ৪ ১৪২৯

  • || ১৭ শাওয়াল ১৪৪৩

আজকের টাঙ্গাইল
সর্বশেষ:
টাইমবাজারে অভিজাত প্রসাধনী সামগ্রী নিয়ে আমানিয়া স্টোর`র উদ্ধোধন মানুষের মুখে হাসি ফোটাতে দেশে ফিরেছিলাম: প্রধানমন্ত্রী একমাত্র শেখ হাসিনাই বাংলাদেশের জন্য অপরিহার্য: শেখ পরশ প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে ভারতীয় চলচ্চিত্র নির্মাতা গৌতম ঘোষের সাক্ষাৎ এসডিজি অর্জনে সম্মিলিত চেষ্টা ও উদ্ভাবনী ভাবনায় গুরুত্বারোপ আরও এক শ’ কারিগরি স্কুল ও কলেজ হচ্ছে ‘বাংলাদেশের পরিস্থিতি শ্রীলঙ্কার মতো হওয়ার সুযোগ নেই’ গম রপ্তানিতে ভারতের নিষেধাজ্ঞা বাংলাদেশের জন্য নয় পুরস্কার পাবেন মাঠ পর্যায়ে ভূমির সেরা কর্মকর্তা-কর্মচারীরা বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট থেকে আয় ৩০০ কোটি ছাড়িয়েছে: বিএসসিএল

ধান ২৭, চাল ৪০ টাকা কেজি

আজকের টাঙ্গাইল

প্রকাশিত: ২৪ এপ্রিল ২০২২  

চলতি বোরো মৌসুমে অভ্যন্তরীণ বাজার থেকে ১৮ লাখ মেট্রিক টন ধান ও চাল সংগ্রহের টার্গেটে মাঠে নামছে সরকার। আগামী ২৮ এপ্রিল থেকে সারা দেশে বোরো ধান ও চাল সংগ্রহ শুরু হচ্ছে। চলবে ৩১ আগস্ট পর্যন্ত। এবার প্রতি কেজি বোরো ধানের সংগ্রহ মূল্য নির্ধারণ করা হয়েছে ২৭ টাকা, সিদ্ধ চাল ৪০ টাকা এবং আতপ চাল ৩৯ টাকা।

মোট ছয় লাখ ৫০ হাজার টন ধান ও ১১ লাখ টন সিদ্ধ চাল, ৫০ হাজার টন আতপ চাল সংগ্রহের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে। গতকাল বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় খাদ্যমন্ত্রী সাধন চন্দ্র মজুমদার এ তথ্য নিশ্চিত করেন। তিনি বলেন, ‘প্রতিবছরই সরকার ধান-চাল সংগ্রহ করে। এবারও করা হচ্ছে। ’

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, গত বছরও ১৮ লাখ টন বোরো ধান ও চাল সংগ্রহের লক্ষ্যমাত্রা নিয়ে মাঠে নেমেছিল সরকার। পরে তিন মাসে মাত্র সাড়ে তিন লাখ টন ধান সংগ্রহ করা সম্ভব হয়। সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিরা বলছেন, কভিড-১৯ মহামারি, লকডাউন, সংগ্রহের জন্য বেঁধে দেওয়া দামের চেয়ে বাজারে ধান-চালের অস্বাভাবিক দাম, খাদ্যগুদামের শর্ত জটিলতায় সরকারের ধান-চাল সংগ্রহ অভিযানে কৃষকের সাড়া না থাকায় লক্ষ্যমাত্রা অর্জিত হয়নি। এ বছর করোনা না থাকায় লক্ষ্যমাত্রা অর্জিত হবে বলে সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিরা মনে করছেন।

খাদ্য মন্ত্রণালয় সূত্রে জানা যায়, চলতি বোরো মৌসুমে সংগ্রহের লক্ষ্যমাত্রার ১৮ লাখ টন ধান ও চালের মধ্যে মিলারদের কাছ থেকে ৪০ টাকা কেজি দরে ১০ লাখ টন সিদ্ধ চাল, ৩৯ টাকা কেজি দরে দেড় লাখ টন আতপ চাল এবং কৃষকদের কাছ থেকে ২৭ টাকা কেজি দরে সাড়ে ছয় লাখ টন ধান কেনার সিদ্ধান্ত হয়েছে।

সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, অতীতে দেখা

গেছে খাদ্যগুদামের শর্ত জটিলতায় গুদামে ধান বিক্রি করতে সমস্যায় পড়েন প্রকৃত কৃষকরা। সরকারি দামে গুদামে ধান দিতে সর্বোচ্চ ১৪ শতাংশ ময়েশ্চারাইজার বা আর্দ্রতা নিশ্চিত করতে গিয়েও বিপাকে পড়েন প্রান্তিক চাষিরা। আর্দ্রতা সম্পর্কে ধারণা না থাকায় তাঁরা এ ঝামেলায় পড়েন। প্রান্তিক পর্যায়ে কৃষকদের মধ্যে সরকারিভাবে প্রচারের অভাব, খাদ্যগুদামে সিন্ডিকেটের দাপট এবং ধান বিক্রির জন্য সনাতনি শর্তসহ নানা প্রতিবন্ধকতার কারণে সরকারের ধান-চাল সংগ্রহ কার্যক্রম থেকে মুখ ফিরিয়ে নেন কৃষকরা। ফলে সরকারের লক্ষ্যমাত্রা অর্জনে বিঘ্ন ঘটে।   

সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিরা জানিয়েছেন, কৃষকরা সরকারের কাছে ধান বিক্রি করতে গিয়ে ঝক্কিঝামেলা মনে করে বেপারিদের কাছে ধান বিক্রি করে দেন। বর্তমানে ৮৫০ টাকা থেকে ৯০০ টাকা মণ ধরে ধান বিক্রি করা হচ্ছে। কোথাও কোথাও স্থানীয় বাজারে ৭০০ থেকে ৭৫০ টাকা মণ ধরেও ধান বিক্রি হচ্ছে।

সরকারের ঘোষণা অনুযায়ী বর্তমানে ধান সংগ্রহের দাম পড়ছে ১০৮০ টাকা মণ। তবে বাংলাদেশ কৃষক সমিতির সাধারণ সম্পাদক কাজী সাজ্জাদ জহির চন্দন মণপ্রতি দাম ১২০০ টাকা (কেজি ৩০ টাকা) করার জন্য সরকারের কাছে দাবি জানিয়েছেন। তিনি বলেন, ‘আমরা হিসাব করে দেখেছি বর্তমানে প্রতি মণ ধান মাড়ানো পর্যন্ত একজন কৃষকের ৭৫০ টাকা খরচ হয়। এর সঙ্গে কৃষকের শ্রম, জমির ব্যবহার ও নষ্ট হয়ে যাওয়ার ঝুঁকি ইত্যাদি বিবেচনায় দাম ১২০০ টাকা করা উচিত। তিনি বলেন, ‘সরকার যখন ধান কেনার বিষয়টি ডিক্লেয়ার করে তখন কৃষকদের কাছে আর ধান থাকে না। তাঁরা বিক্রি করে দেন পাইকারি বিক্রেতা বা মজুদদারদের কাছে। এ কারণে ধান কাটার এক মাস আগে থেকে ধান সংগ্রহের ঘোষণা দেওয়ার জন্য বলে আসছি আমরা। কিন্তু সরকার তা মানছে না। ’

সাজ্জাদ জহির জানান, প্রকৃত কৃষক সরকারের কাছে ধান বিক্রি করতে পারেন না। প্রভাবশালী লোকজন কৃষকদের কাছ থেকে কম দামে ধান কিনে সেটি সরকারের কাছে বিক্রি করে লাভবান হন। তিনি আরো বলেন, ‘বর্তমানে যেসব এলাকায় ধান উৎপাদন হয় ওই সব এলাকার উপজেলায় ধান কেনা হয়ে থাকে। আমরা সরকারের কাছে দাবি জানিয়ে আসছি ইউনিয়ন পর্যায়ে ক্রয়কেন্দ্র করার। ’

প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, বাংলাদেশের কৃষকরা এখনো এতটা সচেতন হননি যে কতটুকু শুকনো বা ভেজা হলে গুদামজাত করা যাবে। এ কারণে সরকারের উচিত কৃষক যে ধানই নিয়ে সেই ধান কিনে নিয়ে গুদামজাত করার প্রক্রিয়া করা।

আজকের টাঙ্গাইল
আজকের টাঙ্গাইল