• বৃহস্পতিবার   ০৯ ফেব্রুয়ারি ২০২৩ ||

  • মাঘ ২৬ ১৪২৯

  • || ১৮ রজব ১৪৪৪

আজকের টাঙ্গাইল

দেশেই তৈরি হবে বিশ্বখ্যাত হুন্দাই গাড়ি

আজকের টাঙ্গাইল

প্রকাশিত: ২০ জানুয়ারি ২০২৩  

স্মার্ট ও উন্নত দেশে পরিণত হতে আরও একটি মাইলফলক স্পর্শ করেছে বাংলাদেশ। এতোদিন দেশে গাড়ি সংযোজন করা হলেও এবার প্রথমবারের মতো দেশে তৈরি হতে যাচ্ছে নতুন গাড়ি। 

দেশের মাটিতে বিশ্বখ্যাত হুন্দাই গাড়ি নির্মাণ করবে ফেয়ার টেকনোলজি। ফলে ‘ম্যাড ইন বাংলাদেশ’ বা বাংলাদেশের তৈরি- ট্যাগে গাড়ি নির্মাণ করবে বাংলাদেশ। যার মাধ্যমে গাড়ি উৎপাদনকারি দেশের খাতায় নাম লিখালো বাংলাদেশ। 

বৃহস্পতিবার (১৯ জানুয়ারি) গাড়ি তৈরির কারখানা উদ্বোধন করা হয়। এতে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত হয়ে দেশে গাড়ি নির্মাণের কাজ শুরু হওয়াকে ঐতিহাসিক ঘটনা বলে মন্তব্য করেছেন শিল্পমন্ত্রী নূরুল মজিদ মাহমুদ হুমায়ূন। 

মন্ত্রী বলেন, দ্রুত অগ্রসরমান বাংলাদেশের প্রতীক হয়ে এখন থেকে রাজপথে চলবে মেইড ইন বাংলাদেশ হুন্দাই ‘এসইউভি’গাড়ি।

তিনি বলেন, দেশেই জনগণের ক্রয়ক্ষমতার মধ্যে সাশ্রয়ী মূল্যে বিশ্বমানের গাড়ি উৎপাদন আমাদের সরকারের অন্যতম লক্ষ্য। এ লক্ষ্য অর্জনে শিল্প মন্ত্রণালয় ইতোমধ্যে অটোমোবাইল শিল্পের বিকাশে একটি নীতিমালা প্রণয়ন করছে। এ শিল্পের উত্তরোত্তর উন্নয়ন এবং টেকসই বিকাশের লক্ষ্যে এ নীতিমালা সহায়ক হবে। এর মাধ্যমে ২০৩০ সালের মধ্যে বাংলাদেশকে আঞ্চলিক অটোমোবাইল শিল্প উৎপাদনের কেন্দ্রে উন্নীত করা হবে। এ লক্ষ্য অর্জনে সরকার অটোমোবাইল শিল্প উন্নয়নে সর্বাধিক গুরুত্ব দিচ্ছে।

সভায় বিশেষ অতিথির বক্তৃতায় তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক বলেন,  দেশের মানুষের সক্ষমতা বাড়ছে। এখন প্রায় ৫২ লাখ গাড়ি চলাচল করে রাস্তায়। যা প্রতিবছর ৫ শতাংশ হারে বাড়ছে। ফলে এসব চাহিদার জোগান দিতে পারবে হুন্দাই। তাদের কারখানা করার মাধ্যমে দেশের শিল্পায়নের সমৃদ্ধি ও সম্ভাবনা বিশ্বের কাছে তুলা ধরা সম্ভব হবে। স্মার্ট বাংলাদেশ বিনির্মাণে এটি অন্যতম একটি মাইলফলক বলেও মন্তব্য করেন তিনি।

বাংলাদেশে নিযুক্ত কোরিয়ার রাষ্ট্রদূত লি জ্যাং-কিউন বলেন, এটা দুই দেশের সম্পর্ক ও বাণিজ্যের ক্ষেত্রে গেম চেঞ্জার হবে। বিশ্বের তৃতীয় বৃহৎ গাড়ি উৎপাদনকারি প্রতিষ্ঠান এখন বাংলাদেশে। মাত্র ২ বছরে আমরা এখানে করাখানা করেছি। এখানে আরও বিনিয়োগ করতে চাই আমরা।

হুন্দাই মোটরের ভারতের ব্যবস্থাপনা পরিচালক উনসো কিম বলেন, তরুণ ক্রেতাদের কথা মাথায় রেখে নতুন নতুন ফিচার নিয়ে আসবো আমরা। গাড়ির দামও তুলনামূলক কম হবে।

ফেয়ার টেকনোলজির ডিরেক্টর ও সিইও মুতাসসিম দায়ান বলেন, বিশ্বসেরা হুন্দাই গাড়ি উৎপাদনে বাংলাদেশের সক্ষমতার প্রমাণ রাখতে পেরে আমরা গর্বিত। এর মধ্য দিয়ে আরও একধাপ এগিয়ে গেল উন্নয়নশীল বাংলাদেশ। অত্যন্ত প্রতিযোগিতামূলক দামে দেশের মানুষের কাছে আমরা এই গাড়ি পৌঁছে দেবো। বিশ্বমানের বিক্রয়োত্তর সেবা এবং সুলভ মূল্যে সব ধরণের স্পেয়ার পার্টসের সহজলভ্যতা নিশ্চিত করা হয়েছে বলেও জানান তিনি।

উদ্যোক্তারা জানান, ফেয়ার টেকনোলজি, হুন্দাই ফ্যাক্টরি শুরুতে এক শিফটে চালু রাখলে বছরে তিন হাজার ক্রেটা এসইউভি উৎপাদন করা যাবে। ধারাবাহিকভাবে শিফট বাড়ানোর মধ্য দিয়ে তা দশ হাজার ইউনিটে উন্নীত করা সম্ভব। যেখানে কর্মসংস্থান হবে ৫ হাজার প্রকৌশলির। এখন সেখানে ৩০০ কর্মকর্তা কাজ করছেন। এর মাধ্যমে দেশে গাড়ি তৈরির মতো দক্ষ জনশক্তি তৈরি হচ্ছে।

আজকের টাঙ্গাইল
আজকের টাঙ্গাইল