• শনিবার   ২৯ ফেব্রুয়ারি ২০২০ ||

  • ফাল্গুন ১৬ ১৪২৬

  • || ০৫ রজব ১৪৪১

আজকের টাঙ্গাইল
৫৫

লালমনিরহাটের ছেলের “রাষ্ট্রপতি আনসার (সেবা) পদক” অর্জন

আজকের টাঙ্গাইল

প্রকাশিত: ১৩ ফেব্রুয়ারি ২০২০  

১৩ ফেব্রুয়ারি আনসার একাডেমিতে অনুষ্ঠিত ৪০তম জাতীয় সমাবেশে বীরত্বপূর্ণ/সাহসিকতাপূর্ণ ও প্রশংসনীয়/ দৃষ্টান্তমূলক এবং সেবামূলক কাজের স্বীকৃতিস্বরুপ আনসার বাহিনীর বিভিন্ন পদবীর সারাদেশের ১৪৩জনকে  প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা “রাষ্ট্রপতি আনসার (সেবা)” পদক পড়িয়ে দেন। 

 

অন্যদের মত এসময় লালমনিরহাটের ছেলে ব্যাটালিয়ন আনসার মোঃ মাহমুদুল আলমকেও প্রধানমন্ত্রী “রাষ্ট্রপতি আনসার (সেবা) পদক পড়িয়ে দেন। লালমনিরহাটের আদিতমারীর উপজেলাধীন পশ্চিম ভেলাবাড়ীর মৃত আহাম্মদ আলীর পুত্র মোঃ মাহমুদুল আলম ২০০৩ সালে ব্যাটালিয়ন আনসার হিসেবে নিয়োগপ্রাপ্ত হন। 

 

তিনি ২০০৪ হতে ২০০৬ পর্যন্ত পরপর ০৩ বার বাহিনীর জাতীয় সমাবেশসহ স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবস কুচকাওয়াজ প্যারেডে অংশগ্রহণ করেন। তিনি পার্বত্য অঞ্চলে দায়িত্ব পালনকালীন সেনাবাহিনীর বিভিন্ন অপারেশনাল কাজে সহায়তাসহ দুর্গম ক্যাম্পে দায়িত্ব পালন করেন। 

 

তিনি বাহিনীর অভ্যন্তরে প্রাথমিক চিকিৎসা প্রশিক্ষণ, বুনিয়াদী প্রশিক্ষণ (মনিটরিং মাঠকর্মী), বেসিক ও উচ্চতর কম্পিউটার প্রশিক্ষণ এবং বাহিনীর বাহিরে জাতীয় গোয়েন্দা সংস্থায় “৯৫তম জুনিয়ার সিকিউরিটি”প্রশিক্ষণ সফলতার সহিত সম্পূর্ণ করেন। 

 

তিনি একজন ফুটবল খেলোয়াড় হিসেবে ২০০৪ থেকে ২০১৫ সাল পর্যন্ত আন্তঃব্যাটালিয়ন ফুটবল প্রতিযোগীতায় স্বতস্ফূর্ততার সাথে অংশগ্রহণ করেন। 

 

গত ২০১৬ সালের ১২ মে গভীর রাতে টেকনাফ নয়াপাড়া ক্যাম্প হতে ২৯ আনসার ব্যাটালিয়নের মোতায়েনকৃত ব্যাটালিয়ন আনসার সদস্যদের ১১টি অস্ত্র ও ৬৭০ রাউন্ড গুলি লুট করে নিয়ে যাওয়া অস্ত্র-গোলাবারুদ উদ্ধার অভিযানে সাহসিকতার সহিত অংশ গ্রহণ করেন। 

 

তিনি মনিটরিং শাখায় “মিডিয়াসেল” গঠন করে বিভিন্ন জাতীয়, স্থানীয় ও অনলাইন পত্রিকা এবং বিভিন্ন গণমাধ্যম হতে তথ্য সংগ্রহ করে আনসার-ভিডিপি সম্পর্কিত সংবাদ ছাড়াও বিশ্বের বিভিন্ন গুরত্বপূর্ণ সংবাদসমূহ বাহিনীর মহাপরিচালকের নিকট প্রেরণে পরোক্ষভাবে সহায়তা করেন। 

 

গত ২০১৯ সালে ২৮ জুন আনসার ভিডিপি সদর দপ্তরের আরপি গেইট্ সংলগ্ন পূর্ব-দক্ষিণ কর্ণারে ২৮৩ সি নং বাসায় প্রাইভেট পড়তে আসা আমির হামজা অনিক নামের খিলগাঁও সরকারি উচ্চবিদ্যালয়ের নবম শ্রেণীর ছাত্রের ব্যবহৃত বাই-সাইকেল উক্ত বাসা থেকে হারিয়ে যায়। 

 

তিনি সিসি টিভি ফুটেজের তথ্য অনুযায়ী  ০১ দিনের মাথায় উক্ত বাই-সাইকেল চোরকে সনাক্ত করে বাই-সাইকেলটি উদ্ধার করেন, যা বাহিনীর মাসিক মুখপত্র জুলাই-১৯ প্রতিরোধে পত্রিকায় প্রকাশিত হয়। উল্লিখিত বিভিন্ন প্রশংসানীয় কাজের স্বীকৃতিস্বরুপ তাকে আনসার ও গ্রাম প্রতিরক্ষা বাহিনীর ৪০তম জাতীয় সমাবেশে বাহিনী কর্তৃক “রাষ্ট্রপতি আনসার (সেবা)” পদকের জন্য মনোনীত করেন।

 

বর্তমান তিনি বাহিনীর মনিটরিং শাখায় কম্পিউটার অপারেটর হিসেবে কর্মরত আছেন।

আজকের টাঙ্গাইল
আজকের টাঙ্গাইল
সারাদেশ বিভাগের পাঠকপ্রিয় খবর