• শনিবার   ১৯ জুন ২০২১ ||

  • আষাঢ় ৫ ১৪২৮

  • || ১০ জ্বিলকদ ১৪৪২

আজকের টাঙ্গাইল

রোজিনা কান্ড নিয়ে প্রথম আলোর কাছে পাঁচ প্রশ্ন

আজকের টাঙ্গাইল

প্রকাশিত: ২৩ মে ২০২১  

প্রথম আলোর জ্যেষ্ঠ সাংবাদিক রোজিনা ইসলাম জামিন পেয়েছেন। ১৭ মে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ে স্বাস্থ্য সেবা সচিবের কক্ষে লাঞ্চিত হন। কি ঘটেছিল সেদিন এ নিয়ে পরস্পর বিরোধী বক্তব্য প্রকাশিত হচ্ছে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে। রোজিনার পক্ষে বলা হচ্ছে, তিনি ষড়যন্ত্রের শিকার। অন্যদিকে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে বলা হচ্ছে গোপনীয় গুরুত্বপূর্ণ নথি সরিয়েছিলেন রোজিনা। এটি প্রকাশিত হলে রাষ্ট্রের ক্ষতি হতো। কার বক্তব্য সত্যি তা আদালতে মীমাংসিত হবে। তবে, এই ঘটনায় অনুসন্ধানী সাংবাদিকতা, তথ্য প্রাপ্তিতে সততা এবং পত্রিকার সম্পাদকীয় দায়িত্ব নিয়ে কিছু মৌলিক প্রশ্ন উঠেছে। এই ঘটনায় প্রথম আলোকে পাঁচটি প্রশ্নের উত্তর দিতেই হবে।

 

১. রোজিনাকে কি কোন এসাইনমেন্ট দিয়েছিল প্রথম আলো:

একজন রিপোর্টার তথ্য সংগ্রহ করতে যান এসাইনমেন্টের মাধ্যমে। হয় তাকে পত্রিকা অফিস থেকে কোন তথ্য সংগ্রহের দায়িত্ব দেয়া হয় অথবা স্পেশাল রিপোর্টের প্রস্তাব রিপোর্টার নিজেই দেন। এটি সম্পাদকীয় কর্তৃপক্ষ অনুমোদন করলেই একজন রিপোর্টার একটি স্থানে রিপোর্ট সংগ্রহের জন্য যেতে পারেন। প্রশ্ন হলো, এরকম কোন এসাইনমেন্ট রোজিনা ইসলামকে দেয়া হয়েছিল কিনা।

 

২. অতীতের মুচলেকার ব্যাপারে কর্তৃপক্ষ কি করেছিল:

এর আগেও রোজিনা ইসলাম তথ্য সংগ্রহের জন্য অবৈধ পন্থা অনুসরণ করতে গিয়ে ধরা পরেছিলেন। সে সময় নৌ পরিবহন মন্ত্রণালয়ে মুচলেকা দিয়ে ছাড়া পেয়েছিলেন রোজিনা। ঐ ঘটনা কি প্রথম আলো কর্তৃপক্ষ জানতো? এ ব্যাপারে প্রথম আলো কি ব্যবস্থা গ্রহণ করেছিল? প্রথম আলো যদি ঐ তথ্য না জানে তাহলে সেটি তাদের ব্যর্থতা। আর জানার পর রোজিনার বিরুদ্ধে যদি কোন ব্যবস্থা না নেয়, সেটি তাদের অপরাধ।

 

৩. রোজিনা আটকের খবর প্রথম আলো কর্তৃপক্ষ কখন জেনেছিল, কি করেছিল:

২ টা ৪১ মিনিটে রোজিনা ইসলাম স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ে যান। এরপর ঘটনা ঘটে। ৫ ঘন্টা সেখানে আটকে থাকেন তিনি। এই সময় প্রথম আলো কি করেছিল। তারা কি স্বাস্থ্যমন্ত্রী, স্বাস্থ্য সেবা সচিব অথবা স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের কোন উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের সঙ্গে যোগাযোগ করেছিল? না করলে সেটি রহস্যময় এবং দুর্ভাগ্যজনক।

 

৪. প্রথম আলোর কেউ ঘটনাস্থলে গেল না কেন:

কারওয়ান বাজার থেকে সচিবালয় ১৫ মিনিটের দূরত্বে। ৫ ঘন্টার বেশি সময় তাদের (প্রথম আলো) একজন সংবাদকর্মী সচিবালয়ে আটক, অথচ প্রথম আলোর কেউ সেখানে গেলেন না কেন?

 

৫. এস.কে.এফ এর স্বার্থ কি জড়িত ছিলো: 

প্রথম আলোর মালিকের একটি ঔষধ কোম্পানী আছে। যার নাম এস.কে.এফ। টিকা নিয়ে তারাও বিভিন্ন দেশের সঙ্গে যোগাযোগ করছে। এস.কে.এফ এর ব্যবসায়িক স্বার্থের জন্য টিকা সংক্রান্ত কোন গোপন নথি নিতে কি রোজিনা গিয়েছিলেন? এটি যদি হয় তাহলে তা হবে অনৈতিক ।

 

তাই স্বাধীন সাংবাদিকতার স্বার্থেই প্রথম আলো কর্তৃপক্ষকে এই ৫টি প্রশ্নের উত্তর দিতে হবে।

আজকের টাঙ্গাইল
আজকের টাঙ্গাইল