• বৃহস্পতিবার   ১৬ জুলাই ২০২০ ||

  • শ্রাবণ ১ ১৪২৭

  • || ২৬ জ্বিলকদ ১৪৪১

আজকের টাঙ্গাইল
৪৯

বীজ কোম্পানিগুলোকে কম মুনাফা করার অনুরোধ জানালেন কৃষিমন্ত্রী

আজকের টাঙ্গাইল

প্রকাশিত: ২৪ জুন ২০২০  

বাংলাদেশের বেসরকারী বীজ কোম্পানিগুলোকে বীজে কম মুনাফা করার অনুরোধ জানিয়েছেন বাংলাদেশ সরকারের কৃষিমন্ত্রী ড. মোঃ আব্দুর রাজ্জাক। প্রাণঘাতি ভাইরাস করোনা পরিস্থিতির মধ্যে এ বছর কৃষকের ক্রয়ক্ষমতা ও আর্থিক সচ্ছলতার বিষয়টি বিবেচনায় নিয়ে হাইব্রিড ধান বীজ, ভুট্টা বীজ ও সবজি বীজসহ অন্যান্য বীজে কম মুনাফা অর্জন করার জন্য সামাজিক দায়বদ্ধতা (সিএসআর) নিয়ে সরকারের পাশাপাশি বেসরকারী বীজ কোম্পানিগুলোকে কৃষকের সেবায় ও কৃষির সেবায় এগিয়ে আসার আহ্বান জানান কৃষিমন্ত্রী।

 

সোমবার তার সরকারী বাসভবন থেকে বৈশ্বিক মহামারী করোনাভাইরাসজনিত বিরাজমান পরিস্থিতিতে ‘বিভিন্ন ফসলের বীজ উৎপাদন, আমদানি, সরবরাহ ও বিপণন নিরবচ্ছিন্ন রাখার বিষয়ে সংশ্লিষ্টদের সঙ্গে অনলাইন সভায় কৃষিমন্ত্রী এ কথা বলেন। সভা সঞ্চালনা করেন কৃষি মন্ত্রণালয়ের সচিব মোঃ নাসিরুজ্জামান। কৃষিমন্ত্রী বলেন, বৈশ্বিক মহামারী করোনার এই দুর্যোগময় পরিস্থিতিতে সারাবিশ্বের সঙ্গে বাংলাদেশ ও এ দেশের কৃষকরাও বিরূপ পরিস্থিতির মুখোমুখি। এটি মোকাবেলায় সরকার কৃষিখাতে সর্বোচ্চ গুরুত্ব দিয়ে ভর্তুকিসহ নানা প্রণোদনা দিয়ে যাচ্ছে। সরকারের পাশাপাশি বেসরকারী বীজ কোম্পানিগুলোকে কৃষকের সেবায় ও কৃষির সেবায় এগিয়ে আসতে হবে। তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনায় কৃষি মন্ত্রণালয়ের সময়োপযোগী সিদ্ধান্ত গ্রহণ ও বাস্তবায়ন এবং সবার সহযোগিতার ফলে প্রাণঘাতী করোনাভাইরাসের অসহনীয় দুর্যোগের মাঝেও লক্ষ্যমাত্রার অধিক বোরো ফসল সংগ্রহ করা সম্ভব হয়েছে। ইতোমধ্যে মাঠ পর্যায়ে আউশ ধান বীজ, আমন ধান বীজ ও পাট বীজ কৃষকদের মাঝে সুষ্ঠুভাবে বিতরণ করা হয়েছে। বর্তমানে আউশ ধান আবাদ কার্যক্রম পুরোদমে চলছে। আশা করা যায়, কোন প্রাকৃতিক দুর্যোগ না হলে আউশেও বোরোর মতো ভাল ফলন পাওয়া যাবে। শুরুর দিকে মৌসুমি ফল ও শাকসবজি বাজারজাতে কিছু সমস্যা থাকলেও এখন তেমন সমস্যা নেই জানিয়ে কৃষিমন্ত্রী বলেন, মোটামুটি ভাল দামেই চাষীরা তাদের উৎপাদিত ফসল বিক্রি করতে পারছেন। পাশাপাশি আমসহ মৌসুমি ফলেরও ভাল দাম পাচ্ছেন কৃষক। করোনার কারণে আসন্ন আমন মৌসুমে উৎপাদন বাড়ানোকে বড় চ্যালেঞ্জ হিসেবে উল্লেখ করে আব্দুর রাজ্জাক বলেন, আমন ধান আবাদের এরিয়া বোরোর চেয়ে বেশি হলেও উৎপাদন অনেক কম। একমাত্র উচ্চফলনশীল জাতের গুণগত মানসম্পন্ন বীজ ব্যবহারের মাধ্যমে ফসলের উৎপাদনশীলতা ১৫-২০ শতাংশ বৃদ্ধি করা সম্ভব। আমন ও রবি মৌসুম সামনে, সেখানে অনেক শাক-সবজি, ভুট্টা, ডাল, তৈলসহ উফশী ধান ও হাইব্রিড ধান বীজের প্রয়োজন রয়েছে। সেজন্য স্থিতিশীল খাদ্য নিরাপত্তা অর্জনের জন্য গুণগত মানসম্পন্ন বীজ উৎপাদন ও পর্যাপ্ত সরবরাহ নিশ্চিতে কৃষি মন্ত্রণালয় সব ধরনের প্রচেষ্টা চালাচ্ছে।

আজকের টাঙ্গাইল
আজকের টাঙ্গাইল
কৃষি বিভাগের পাঠকপ্রিয় খবর