• শনিবার   ১৯ জুন ২০২১ ||

  • আষাঢ় ৫ ১৪২৮

  • || ১০ জ্বিলকদ ১৪৪২

আজকের টাঙ্গাইল

বন্দুকের নলে ক্ষমতা দখল, গণতন্ত্রের জিয়া স্টাইল

আজকের টাঙ্গাইল

প্রকাশিত: ৩ জুন ২০২১  

৩০ মে ১৯৭৭ সেনাপ্রধান পদে থেকে জিয়া গণভোট আয়োজনের পর রাষ্ট্রপতি পদে অধিষ্ঠিত হন, একই সাথে ১৯৭৮ সালের ২৯ এপ্রিল পর্যন্ত তিনি সেনাপ্রধান পদেও থাকেন। 

 

এ নির্বাচন প্রসঙ্গে বিচারপতি সায়েম বলেন,

 

“বস্তুত জিয়া তাঁর অবস্থান সংহত করার উদ্দেশ্যে ইতোমধ্যে একটা গণভোট করে ফেলেন। তাঁর প্রতি এবং তাঁর ঘোষিত নীতি ও কর্মসূচীর প্রতি ভোটারদের আস্থা আছে কি না তাই ছিল গণভোটের বিষয়। কিন্তু সেই গণভোটে হ্যাঁ বাক্সে এত বেশি ভোট পড়ে যে, জনগণ সেই ফলাফলকে হাস্যকরভাবে অবিশ্বাস্য মনে করে।”

 

রাষ্ট্রপতি পদে থেকে ১৯৭৮ সালের ৩ জুন তিনি নির্বাচন আয়োজনের মাধ্যমে পুনরায় রাষ্ট্রপতি পদে বসেন। 

এই রাষ্ট্রপতি নির্বাচনে জিয়ার পক্ষে পোস্টারেও তার পদবী হিসেবে মেজর জেনারেল লেখা হয়েছিলো। অবসরপ্রাপ্তরা পদবী ব্যবহার করলে তার উল্লেখ থাকা লাগে জিয়ার সময়ন সেটি মানা হয়নি। পূর্বের মতো এবারও সেনাপ্রধান পদ ব্যবহার করে ক্ষমতায় বসেছিলেন জিয়াউর রহমান।

 

৩রা জুন ১৯৭৮ সালে বাংলাদেশে প্রথম সরাসরি ভোটের মাধ্যমে রাষ্ট্রপতি নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়।নির্বাচনে জিয়াউর রহমান (বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী ফ্রন্ট- ধানের শীষ প্রতিকে) ৭৬.৬% ভোট পেয়ে জয় লাভ করেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দী আতাউল গণি ওসমানী (গণতান্ত্রিক ঐক্য জোট) পান ২১.৭% ভোট। মোট ভোট দিয়েছিলো ২ কোটি ৮ লক্ষের মত ভোটার। নির্বাচনটি চরম বিতর্কিত কারণ এটি বাংলাদেশের একমাত্র নির্বাচন যেখানে জিয়াউর রহমান বেশিরভাগ কেন্দ্রে প্রদত্ত ভোটের ৯৫-৯৯% পর্যন্ত ভোট পেয়েছিলেন, বাংলাদেশে নির্বাচন ব্যবস্থাকে কলঙ্কিত করার সূচনা এখান থেকেই।

আজকের টাঙ্গাইল
আজকের টাঙ্গাইল