• রোববার   ১১ এপ্রিল ২০২১ ||

  • চৈত্র ২৮ ১৪২৭

  • || ২৯ শা'বান ১৪৪২

আজকের টাঙ্গাইল

দেশজুড়ে বিক্রি হচ্ছে টাঙ্গাইলের শাল

আজকের টাঙ্গাইল

প্রকাশিত: ১৪ জানুয়ারি ২০২১  

টাঙ্গাইলের তৈরিকৃত শাল জেলার গণ্ডি পেরিয়ে এবার বিক্রি হচ্ছে দেশ জুড়ে। অত্যাধুনিক ডিজাইন ও দক্ষ কারিগর দিয়ে এ শাল তৈরি করায় ক্রেতাদের কাছে ব্যাপক চাহিদা বৃদ্ধি পেয়েছে বলে জানিয়েছেন জেলার শাল উৎপাদনকারী তাঁতিরা। এবার শীতে বিক্রি হচ্ছে নানা ডিজাইনের শাল।

সরেজমিনে দেখা গেছে, জেলার দেলদুয়ার উপজেলায় শীতকে কেন্দ্র করে তাঁতিরা তৈরি করছেন আধুনিক ডিজাইনের শাল (চাদর)। সাধারণ ক্রেতা ও মহাজনদের চাহিদা পূরণ করতে ব্যস্ত সময় কাটাচ্ছেন এখানকার শাল শ্রমিকরা। রুচিশীল ও অত্যাধুনিক ডিজাইনের শাল তৈরিকারক হিসেব এ উপজেলার তাঁতিদের যথেষ্ট সুনাম রয়েছে। মানসম্মত হওয়ায় এ উপজেলার উৎপাদিত শাল বিক্রি হচ্ছে দেশজুড়ে।

তাছাড়া নানান রঙের সুতোয় বোনা শাল বিক্রি করে বেকারত্বের অভিশাপ থেকে মুক্তি পেয়েছে এখানকার অনেক যুবক। উপজেলার আবাদপুর ও এলাসিন, লাউহাটী গ্রামের প্রায় কয়েকশ পরিবার শাল তৈরির কাজ করে জীবিকা নির্বাহ করছেন। টাঙ্গাইল সদর উপজেলার করটিয়া ইউনিয়নের করটিয়া হাট থেকে দেশের বিভিন্ন স্থানে পাইকারি ক্রেতাদের মাধ্যমে ছরিয়ে পড়ছে এই শাল।

তাঁতিদের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, ৩শ থেকে ৫শ আবার কোনো শাল ১ হাজার টাকায় বিক্রি হচ্ছে। প্রতিটি তাঁতে দিনে ৬-৭ টি শাল তৈরি করা যায়। শাড়ি ও শাল তৈরির প্রক্রিয়া প্রায় একই রকম। ডিজাইনের উপর ভিওি করে ৫৫ থেকে ৮০ টাকা মজুরি দিয়ে থাকেন একজন তাঁত মালিক। সেখান থেকে মজুরি হিসেবে ৪০ থেকে ৫০ টাকা দিতে হয় শ্রমিককে।

আর তাঁতির প্রতিটি শালে লাভ হয় ২৫ থেকে ৩০ টাকা। এসব তথ্য জানিয়েছেন আবাদপূর গ্রামের তাঁত মালিক মুন্নাফ মিয়া। তিনি জানান, সব খরচ বাদ দিয়েও প্রতি মাসে তার ২১ হাজার টাকা লাভ হয়। এবং বছরে তার প্রায় ২ লাখ ৫০ হাজার টাকা আয় হয়।

দুই সুতি পাইর, কিরকিরি, নয়নতারা বহুরূপিসহ হরেক রকম ডিজাইনের নকশা করা শাল তৈরি করে যাচ্ছে এখানকার তাঁতিরা। শুধু তাই নয় অর্ডার অনুযায়ী এসব শাল তৈরিতে পুরুষের পাশাপাশি এলাকার দুস্থ নারীরাও চড়কায় সুতা ছিটায় উঠানোর কাজ করে অতিরিক্ত টাকা যোগ করছে পরিবারের জন্য।

রহমত নামের একজন তাঁতি জানান, মহাজনদের চাহিদা অনুযায়ী শাল তৈরি করে যাচ্ছেন তারা। প্রতি সপ্তাহে হাজার হাজার পিস শাল সারাদেশে রফতানি করা হচ্ছে। ইকবাল ভুইয়া, জাহাঙ্গির মোল্লা. সফর আলীসহ অনেক বাড়িতেই শ্রমিকরা শাল তৈরিতে ব্যস্ত সময় কাটাচ্ছেন।

ইমরান নামের একজন মহাজন জানান, ক্রেতাদের শালের প্রতি দৃষ্টিনন্দন করতে নানান রঙের সুতার কারুকার্যে বাহারি ডিজাইনের শাল তৈরি করার জন্য তাঁতিদের আগে থেকেই তাগিদ দেয়া হয়েছে। দেলদুয়ারের তৈরিকৃত শাল সবার মন কাড়বে বলেও তিনি জানান। সরকারের পৃষ্ঠপোষকতা পেলে শাল রফতানি করে প্রচুর বৈদেশিক মুদ্রা আয় করা সম্ভব বলেও তিনি জানিয়েছেন।

জেলার বাসাইল, দেলদুয়ার ও মির্জাপুর উপজেলায় চাদর তৈরির তাঁত রয়েছে সাড়ে ৫ হাজার। আর এতে, কাজ করছেন কমপক্ষে ১১ হাজার শ্রমিক।

আজকের টাঙ্গাইল
আজকের টাঙ্গাইল