• মঙ্গলবার   ১৮ মে ২০২১ ||

  • জ্যৈষ্ঠ ৩ ১৪২৮

  • || ০৬ শাওয়াল ১৪৪২

আজকের টাঙ্গাইল

টঙ্গীতে মুক্তিপণ না পেয়ে অষ্টম শ্রেণির ছাত্রকে হত্যা ॥ গ্রেফতার-১

আজকের টাঙ্গাইল

প্রকাশিত: ১২ এপ্রিল ২০২১  

টঙ্গীর গুটিয়া আন্দারুল তুরাগ নদ থেকে গত ১৯ মার্চ অজ্ঞাত লাশ উদ্ধার হওয়ার রহস্য উদঘাটন করলো টঙ্গী পশ্চিম থানা পুলিশ। লাশের পরিচয়  ও হত্যাকান্ডের তথ্য উদঘাটন করতে টঙ্গী পশ্চিম থানা পুলিশ হত্যাকান্ডে জড়িত একজনকে গ্রেফতার করেছে। তিনি আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দিতে পুরো ঘটনার বর্ণনা দেন। স্বীকারোক্তিমূলক ৫ লক্ষ টাকা মুক্তিপন না পেয়ে ইসমাইল সরকারকে হত্যা করে হত্যা করে লাশটি তুরাগ নদীর তীরে ফেলে দেয় অপহরণকারী চক্রটি। 

জানা যায়, ইসমাইল হোসেন (১৪) রাজধানীর তুরাগ থানার কামারপাড়া উচ্চ বিদ্যালয়ের অষ্টম শ্রেণির ছাত্র। তার বাবা নাম নূর নবী সরকার। তার গ্রামের বাড়ি সিরাজগঞ্জ জেলার রায়গঞ্জ থানায়। বর্তমানে তারা কামারপাড়া এলাকায় ভাড়া বাসায় থাকতো। 

এ বিষয়ে টঙ্গী পশ্চিম থানার অফিসার ইনচার্জ মো: শাহ আলম জানান, টঙ্গীর গুটিয়া আন্দারুল তুরাগ নদীর তীরে পানিতে হাত-পা ছড়ানো ভাসমান অবস্থায় এক অজ্ঞাত যুবকের লাশ দেখতে পায় এলাকাবাসী। খবর পেয়ে টঙ্গী পশ্চিম থানার এস আই সাব্বির হোসেন অজ্ঞাত নামা যুবকের মৃত লাশটি উদ্ধার করে। তার পরনে ছিল নীল রঙের জিন্স প্যান্ট, নীল রঙের টি শার্ট পরিহিত অবস্থায় ছিল। তার চোখ এবং মুখ যখম প্রাপ্ত এবং লাশটি বিকৃতি হয়ে গন্ধ ছড়াচ্ছিল। 

ধারণা করা হয় ১৯ মার্চের পূর্বে যেকোনো সময় অজ্ঞাতনামা খুনিরা তাকে হত্যা করে আলামত গোপন করার উদ্দেশ্যে মৃতদেহ তুরাগ  নদীর পানিতে ফেলে দেই। এ ঘটনায় গত ২০ মার্চ টঙ্গী পশ্চিম থানায় একটি মামলা দায়ের করা হয়। যাহার মামলা নাম্বার ২৫। এই মামলাটি তথ্য প্রযুক্তি ব্যবহার করে টঙ্গী পশ্চিম থানার চৌকশ উপ পরিদর্শক এস আই ইয়াসিন আরাফাতের নেতৃত্বে গাজীপুর মেট্রোপলিটনসহ আশপাশের জেলাগুলোতে  ভিকটিমের  ছবিসহ বেতার বার্তা প্রেরণ করে। এক পর্যায়ে তদন্তকালে তুরাগ থানায় গত ১৮ মার্চ দায়ের করা নিখোঁজ সংক্রান্তে একটি জিডি তথ্য অনুসন্ধানে যায় তদন্তকারীদল। 

ওই জিডির সূত্র ধরে ভিকটিমের অস্থায়ী ঠিকানা তুরাগ থানা কামারপাড়া গিয়ে ভিকটিমের বাবা মা কে ছবি এবং জামা-কাপড় দেখিয়ে নিহতের পরিচয় সনাক্ত করা যায়। পরে পুলিশ ভিকটিমের মা-বাবার কাছ থেকে বিভিন্ন তথ্য সংগ্রহ করে এবং তথ্য প্রযুক্তি ব্যবহার করে ঘটনার সাথে জড়িত প্রকৃত আসামী মোহাম্মদ আতাউল হোসেন (৩৫) কে গ্রেফতার করে। পুলিশের জিজ্ঞাসাবাদে আতাউল হোসেন এ হত্যাকান্ডের কথা স্বীকার করে। তিনি স্বেচ্ছায় আদালতে ঘটনার বর্ণনা দিয়ে  স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেন। গ্রেফতারকৃত আতাউল হোসেন গাইবান্ধা জেলার সাঘাটা থানার রামনগর গ্রামের মৃত ইমাম হোসেনের ছেলে। আসামীর স্বীকারোক্ত অনুযায়ী আতাউল ও তার সহযোগী ভিকটিমের পরিবারের কাছে ৫লক্ষ টাকা চাঁদা দাবী করে। উক্ত চাঁদা না পেয়ে হত্যা করে গুম করার উদ্দেশ্যে লাশ তুরাগ নদীতে ফেলে দেয়। এ বিষয়ে টঙ্গী পশ্চিম থানার অফিসার ইনচার্জ মো: শাহ আলম জানান, এ ঘটনার সাথে জড়িত অন্য আসামীদের গ্রেফতারের চেষ্টা অব্যাহত রয়েছে।  

আজকের টাঙ্গাইল
আজকের টাঙ্গাইল