• বৃহস্পতিবার   ১৩ আগস্ট ২০২০ ||

  • শ্রাবণ ২৯ ১৪২৭

  • || ২৩ জ্বিলহজ্জ ১৪৪১

আজকের টাঙ্গাইল
সর্বশেষ:
জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে কাজিপুরে সঙ্গীত প্রতিযোগিতা ৯৯৯ নম্বরে ফোন পেয়ে প্রসূতি ও নবজাতক সন্তানকে উদ্ধার করে পুলিশ “সংসারের পাশাপাশি সংগঠনকে তিনি দক্ষতার সঙ্গে পরিচালনা করতেন” বঙ্গমাতা ছিলেন বঙ্গবন্ধুর শক্তি ও সাহসের উৎস “বঙ্গবন্ধুকে হত্যা ছিলো স্বাধীন বাংলাদেশকে হত্যার ষড়যন্ত্রের অংশ” চলতি বছরের মধ্যে শেষ হবে ১০ ইউটার্নের কাজ: মেয়র আতিক আগামী মাস থেকে ঢাকা উত্তরের সব ঝুলন্ত তার কেটে ফেলা হবে : আতিক সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির এক উজ্জ্বল নিদর্শন বাংলাদেশ: কাদের উল্লাপাড়ায় যুবলীগের আহবায়কের রোগ মুক্তি কামনায় দোয়া মাহফিল প্লাজমা দিয়ে ক্যান্সার ও এইডসের ওষুধ বাংলাদেশেই উৎপাদন
১৬৭

করোনা বিনাশ করতে মন্দিরের ভিতরে ‘নরবলি’ দিলেন পুরোহিত!

আজকের টাঙ্গাইল

প্রকাশিত: ২৯ মে ২০২০  

মহামারি নভেল করোনা ভাইরাসের বিনাশ করতে দেবতাকে খুশি করতে হবে। তাই তার জন্য চাই নরবলি। এমনটাই নাকি স্বপ্নাদেশ পেয়েছিলেন। সেই আদেশ অনুসারে মন্দিরের ভিতরেই কুড়ুল দিয়ে এক ব্যক্তির মাথা কেটে বলি দিলেন পুরোহিত। ভারতের ওড়িশার কটকে এক স্থানীয় মন্দিরের পুরোহিতের বিরুদ্ধে এমনটাই অভিযোগ উঠেছে। বৃহস্পতিবার সকালে পুলিশের কাছে আত্মসমর্পণ করার পর তাঁকে খুনের অভিযোগে গ্রেফতার করা হয়।

 

পুলিশ সূত্রে খবর, বুধবার গভীর রাতে ঘটনাটি ঘটছে নরসিংহপুর থানা এলাকায় বাঁধহুদা গ্রামের কাছে একটি স্থানীয় মন্দিরে। ওই মন্দিরের ৭২ বছরের পুরোহিত সংসারী ওঝার বিরুদ্ধে স্থানীয় এক ব্যক্তিকে খুনের অভিযোগ উঠেছে। তদন্তকারীরা জানিয়েছেন, মৃতের নাম সরোজকুমার প্রধান (৫২)।

 

পুলিশের দাবি, এ দিন সকালে থানায় এসে আত্মসমর্পণ করে ঘটনার কথা স্বীকার করেছেন সংসারী ওঝা। তবে তদন্তকারীদের কাছে তাঁর দাবি, করোনাভাইরাসকে বিনাশ করতে মন্দিরের দেবীর কাছ থেকে নরবলির স্বপ্নাদেশ পেয়েছিলেন তিনি। সেই নির্দেশ মেনেই সরোজকে বলি দিয়েছেন। তবে এই দাবি মানতে নারাজ এলাকার স্থানীয়রা। তাঁদের পাল্টা দাবি, সরোজের সঙ্গে ওই গ্রামের একটি আমবাগান নিয়ে দীর্ঘ দিনের বিবাদ চলছিল ওই পুরোহিতের। সেই আক্রোশেই এ কাজ করে থাকতে পারেন তিনি।

 

তদন্তকারীরা জানিয়েছেন, ঘটনার রাতে সরোজের সঙ্গে নরবলি নিয়েই ঝগড়াঝাঁটি হয় বলে জানিয়েছেন সংসারী ওঝা। তর্কাতর্কির সময় একটি কু়ড়ুল দিয়ে সরোজের মাথায় আঘাত করেন তিনি। কুড়ুলের ঘায়ে সেখানেই লুটিয়ে পড়েন সরোজ। এর রাত পেরোলে পুলিশের কাছে গিয়ে আত্মসমর্পণ করেন সংসারী।

 

কটকের ডিআইজি (সেন্ট্রাল রেঞ্জ) আশিসকুমার সিংহ জানিয়েছেন, সরোজের দেহ ময়নাতদন্তের জন্য পাঠানো হয়েছে। ওই  তিনি বলেন, ‘‘প্রাথমিক তদন্তে জানা গিয়েছে, বুধবার রাতে ঘটনার সময় মত্ত অবস্থায় ছিলেন সংসারী ওঝা। পরের দিন সকালে তাঁর হুঁশ ফিরলে পুলিশের কাছে এসে আত্মসমর্পণ করেন তিনি। খুনের কথা স্বীকারও করে নিয়েছেন সংসারী।’’

 

ঘটনার কথা প্রকাশ্যে আসতেই তুমুল প্রতিক্রিয়া শুরু হয়েছে ওড়িশায়। অভিযুক্তের চরম শাস্তির দাবি করেছেন অনেকে। ওই রাজ্যের এক সমাজকর্মী সত্যপ্রকাশ পতি বলেন, ‘‘একবিংশ শতকেও যে মানুষ এ ধরনের বর্বর কাজে বিশ্বাস করে, তা সত্যিই অবিশ্বাস্য। দোষীর কড়া শাস্তির দাবি জানাচ্ছি।’’

আজকের টাঙ্গাইল
আজকের টাঙ্গাইল
আন্তর্জাতিক বিভাগের পাঠকপ্রিয় খবর